টি-টুয়ান্টি থেকে অবসর নিতে বাধ্য করা হয়েছিল মাশরাফীকে!

২০০৯ সালের পর টেস্ট খেলা হয়নি মাশরাফীর। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে গিয়ে টেস্ট খেলতে নেমে ইনজুরিতে পড়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছিল তাকে। এখনো ওয়ানডে ক্রিকেট চালিয়ে গেলেও ২০১৭ সালে শ্রীলঙ্কার সফরে থাকাকালীন টি-টোয়েন্টি থেকে অবসরের ঘোষণা দেন তিনি।

তখন হুট করে তার অবসরের ঘোষণা মেনে নিতে পারে নি সাধারণ ক্রিকেট জনতা। সবার মধ্যে তখনই ধারণা জন্মেছিল কোনো এক অজানা রহস্যের! কিন্তু নিশ্চিত করে কেউ বলতে পারে নি কেন তাকে বিদেশের মাটিতেই অবসরের ঘোষণা দিতে হলো। টি-টোয়েন্টিতে খেলা চালিয়ে যাওয়ার ইচ্ছে থাকলেও এক প্রকার বাধ্য হয়েই অবসর নিয়েছিলেন ডানহাতি এই পেসার, দেশের বেসরকারি টিভি চ্যানেল একাত্তরের খেলাযোগকে এমনটাই জানিয়েছেন মাশরাফী।

এরপর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) এ ভালো পারফরম্যান্স করার সঙ্গে দলকে শিরোপা জেতায় আলোচনা আরো গভীরে চলে যায়। কেউ কেউ ক্রিকেটভক্ত তাকে আবারো অবসর থেকে ফিরে আসার জন্য স্বপ্নও দেখতে থাকে। কিন্তু মাশরাফী এমনটা করেন নি! অবশেষে প্রায় ৩ বছর পর এটি নিয়ে মুখ খুলেছেন তিনি। যেখানে তিনি জানিয়েছেন, ওই সিরিজে অবসর না নিয়ে উপায় ছিল না তাঁর।

মাশরাফী বলেন, ‘ওইখানেও কিন্তু আমাকে করতেই হতো, এমন পরিস্থিতিই তৈরি হয়েছিল যে আমাকে করতেই হতো। নিতে হয়েছে, বিস্তারিত যাবো না। আমি কার থেকে সহযোগিতা পেয়েছি দেখান তো আমার টাইমে। ২০১১ বিশ্বকাপে ইনজুরিতে পড়ে ডাক্তার ছাড় দেয়ার পরও আমাকে দলে নেয়া হয়নি। ২০১৭ সালে যখন অবসরে গেলাম তখন আমার পাশে কেউ ছিল না দেশের মানুষ ছাড়া।’

তিনি বলেন, ‘আমি যখন শ্রীলঙ্কায় পা রেখে হোটেলে যাই, আমি তখনও ট্রাভেল স্যুটও খুলিনি তখনই নিচে আমার সঙ্গে বৈঠকে বসে। ওই বৈঠকের পরই আমি ভাবি যে, কিছু একটা গোলমাল আছে। আমি সবসময় বলে আসতাম আমরা সিদ্ধান্তগুলো কিন্তু হুট করেই হবে। আমি যখন বুঝতে পেরেছি সবার বিপরীতে থাকার প্রয়োজন নাই।’

উল্লেখ্য, ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে নিজেই ওয়ানডে অধিনায়ক থেকে সরিয়ে নেন নিজেকে। এরপর এখনো মাশরাফী জাতীয় দলে জায়গা পান নি।

তানবীর রহমান
আসসালামু আলাইকুম, আমি তানবীর রহমান। বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যায়নরত একজন শিক্ষার্থী। পাশাপাশি ক্রিকেটসহ ক্রীড়া জগত এবং বিভিন্ন বিষয়ে লেখালেখি করি৷

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles