শুভ জন্মদিন তামিম ইকবাল

ডেস্ক রিপোর্ট।। মুছাদ্দিকুল হক:
বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে সেরা ব্যাটসম্যান কে? তা নিয়ে প্রশ্ন থাকতেই পারে। একেকজনের উত্তর একেকটা হতে পারে।

তবে তামিম ইকবালই যে তিন ফরমেটে এ দেশের সবচেয়ে সফলতম ব্যাটসম্যান, তাতে কোনো সন্দেহ নেই। কারণ টেস্ট, ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি, এ তিন ফরমেটে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রান তাঁর।

যদি এই পরিসংখ্যানকে মানদণ্ড বা নিয়ামক ধরি, তবে অনিবার্যভাবেই বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ব্যাটসম্যান এখন তামিম ইকবাল।

২০০৭ বিশ্বকাপ!
তামিম ইকবাল সবার নজরে কাড়েন ২০০৭ বিশ্বকাপে ভারতের বিপক্ষে।

OHHHHHHOOOO LOOK AT THIS!…
এরপর ধারাভাষ্যকার কিছুক্ষণের জন্য চুপ। ভাষা হারিয়ে ফেলেছেন, তিনি কী বলবেন!
১৭ বছরের একটি ছেলে সেই সময়কার দুনিয়া কাঁপানো ফাস্ট বোলার জহির খানকে ডাউন দ্যা ট্রাকে এসে চোখ জুড়ানো শটে বল পাঠালেন গ্যালারিতে। তখন কারোরই বিশ্বাস হচ্ছিলো না, এই ছেলের বয়স ১৭ বছর!

সেদিন উইকেট ছেড়ে দু’পা বেরিয়ে লং-অনের উপর দিয়ে বিশাল ছক্কা হাঁকিয়ে তামিম ইকবাল পৃথিবীকে জানান দিয়েছিলেন- শুধু জহির খানকে নয়, পুরো বিশ্ব ক্রিকেটকে শাসন করতেই এসেছি আমি। জহির খানের বলে তামিমের ওই ছক্কা হাঁকানোর আক্রমণাত্মক ভঙ্গিই এ দেশটার ক্রিকেট ইতিহাসের সবচাইতে বড় বিজ্ঞাপন হয়ে গিয়েছিলো।

লর্ডস সেঞ্চুরী!
তামিম ইকবাল দৌড়ে গিয়ে একটা লাফ দিলেন। এরপর কয়েকবার জার্সির পেছন দিকে হাত দিয়ে ড্রেসিংরুমের দিকে দেখালেন। তখন তামিম ইকবাল হয়তো বোঝাতে চাইলেন, লর্ডসের অনার্স বোর্ডে নাম তোলার পরীক্ষায় পাস তো করলাম! এবার তবে লিখে ফেলো!

লর্ডসে সেঞ্চুরির পর তামিমের রাজকীয় উদযাপন আজও ক্রিকেট রোমান্টিকদের চোখে ভাসে। সেকি সেঞ্চুরি!

দ্বিতীয় ইনিংসে ১৫ চার এবং ২ ছয়ে মাঠ আলো করে মাত্র ৯৪ বলে। লর্ডসে প্রথম বাংলাদেশীর প্রথম সেঞ্চুরি।

২০১২ এশিয়া কাপ!
পরপর চারটা অর্ধ-শতক হাঁকিয়ে সমালোচকদের মুখ বন্ধ করেছিলেন তামিম ইকবাল। প্রথমবারের মতো বাংলাদেশকে এশিয়া কাপের ফাইনালে তুলতে দারুণ ভুমিকা রেখেছিলেন।

বাংলাদেশ ক্রিকেটের বহু অর্জনের রূপকার চট্টলার খাঁন সাহেব। সময়ের পরিবর্তনে ব্যাটিং স্টাইল, ব্যাটিং অ্যাপ্রোচও পাল্টেছেন। আগে শুরু থেতেই তেড়েফুরে চার ছক্কা হাঁকাতে চাইতেন। দীর্ঘ সময় উইকেটে থেকে লম্বা ইনিংস খেলার চেয়ে চিত্তাকর্ষক ব্যাটিং করে দর্শক ভক্তদের মনোরঞ্জনই ছিল লক্ষ্য। কিন্তু সময়ের ফেরে সেই তামিম এখন অনেক পরিণত, ধীর স্থির। চটকদার মার আর বাহারি স্ট্রোক প্লেতে মাঠ মাতানোর চেয়ে এখন দলের প্রয়োজন মেটাতেই অধিক মনোযোগী তামিম ইকবাল।

২০১৯ ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ থেকেই নিজেকে হারিয়ে খুঁজছেন তামিম ইকবাল। বিশ্বকাপ ব্যর্থতা এবং ঠিক তার পরপরই ব্যাটিং ব্যর্থতার মাঝে দলের দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেওয়া। সবকিছু মিলিয়ে সময়টা ভালো যাচ্ছে না তামিমের।

আজ তামিম ইকবালের জন্মদিন। আজকের এ বিশেষ দিনে খাঁন সাহেবের কাছে একটাই চাওয়া, যেন স্বরূপে ফিরে আসেন।

শুভ জন্মদিন তামিম ইকবাল খান।
আপনাকে ঠিক যেভাবে মানায়, সে পুরানো রূপের ফিরে আসুন। আপনি ঠিক যেভাবে সুন্দর, সেভাবে ফিরে আসুন।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles