আমি ফিক্সিং করিনি – দাবি হিথ স্ট্রিকের!

হিথ স্ট্রিক বাংলাদেশের ক্রিকেট সমর্থকদের কাছে পরিচিত এক নাম। ছিলেন জাতীয় দলের পেস বোলিং কোচের দায়িত্বে। তার কোচিংয়ে সাফাল্য পেয়েছে বাংলাদেশের পেসাররা। তাসকিন আহমেদ, মাশরাফি মোর্ত্তাজা, রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান নিয়মিত সেরা বোলিং করেছিলেন। ফলাফলস্বরূপ জিম্বাবুয়ে, ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকারমতো দলের বিরুদ্ধে সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের কোচিং ছেড়ে ভারতে আরও সম্মান পাওয়ার আশায় চাকরি ছেড়েছিলেন হিথ৷ এরপর তার লক্ষ্য পূরণ তো হয়নি বরং বিভিন্ন জায়গা ঘুরে এবার নিষেধাজ্ঞাই পেয়ে গেলেন আইসিসি থেকে। জুয়াড়ির কাছে তথ্য পাচারের অভিযোগ ৮ বছরের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন জিম্বাবুয়ের সাবেক এই ক্রিকেটার। দোষ মেনে নিলেও তিনি দাবি করে বলেন ফিক্সিং বা গড়াপেটার কাজে তিনি যুক্ত ছিলেন না।

জুয়াড়ির সাথে তার সম্পর্ক ছিল নিছক বন্ধুত্বের খাতিরে এমন দাবি করেন হিথ। ফিক্সিংয়ের উদ্দেশ্য নিয়ে তথ্য পাচার করেননি বলে জানান তিনি। সাকিব আল হাসানের ফোন নম্বর স্ট্রিকই জুয়াড়ির কাছে দিয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে স্ট্রিকের দাবি, তিনি ‘বন্ধুত্বের খাতিরে’ এসব করেছেন।

তিনি বলেন, “আমি দর্শক ও সমর্থকদের জানাতে চাই ম্যাচ ফিক্সিং, স্পট ফিক্সিং বা খেলায় প্রভাব রাখার মত তথ্য আমি পাচার করিনি। আইসিসি তাদের বক্তব্যেই তা নিশ্চিত করেছে।”

বাংলাদেশের সাবেক এই পেস বোলিং কোচ জানান, “২০১৭ সালে এক ব্যক্তির সাথে দেখা হয়। আফ্রিকায়, বিশেষত জিম্বাবুয়েতে একটি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে স্পন্সর হতে আগ্রহী ছিলেন তিনি, যে টুর্নামেন্টের নাম হত সাফারি ব্লাস্ট। সব প্রটোকল পার করেই এসেছিলেন। আমি তাকে বন্ধু হিসেবে নিই এবং ব্যবসায়িক পার্টনার ভাবি। বন্ধুত্বটা সৌহার্দ্যপূর্ণ মত ছিল। ভেবেছিলাম এতে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটেরও সুবিধা হবে।”

তথ্য পাচারের বিনিময়ে স্ট্রিক বেশ কিছু জিনিসপত্র নিয়েছেন বলে জানায় আইসিসি। কিন্তু তার দাবি করেন সেগুলো বন্ধুত্বের খাতিয়ে নিয়েছিলেন তিনি।

হিথ স্ট্রিক আরও বলেন, “আর একটি জিনিসই আমি নিয়েছিলাম, হুইস্কির বোতল ও স্ত্রীকে দেওয়া ফোন। কয়েক মাস পর আইসিসি আমাকে জানায় যার সাথে বন্ধু হিসেবে তথ্য ভাগাভাগি করেছি সে তা জুয়ার কাজে ব্যবহার করতে পারে।”

বাংলাদেশের সাবেক এই কোচ জিম্বাবুয়ের কোচ থাকাকালে ফিক্সিংয়ে জড়িয়ে পড়েন। স্ট্রিকের বিরুদ্ধে যখন ফিক্সিংয়ের তদন্ত হচ্ছিল তখন তিনি বিভিন্নভাবে নিজেকে নির্দোষ প্রমাণের চেষ্টা করে গেছেন। এতে লাভ হয়নি, শাস্তি থেকেও বাঁচতে পারেননি তিনি।

তানবীর রহমান
আসসালামু আলাইকুম, আমি তানবীর রহমান। বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যায়নরত একজন শিক্ষার্থী। পাশাপাশি ক্রিকেটসহ ক্রীড়া জগত এবং বিভিন্ন বিষয়ে লেখালেখি করি৷

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles