জমে উঠেছে নর্থ সাউন্ডের টেস্ট!

আসিফ আবদুল্লাহ

টেস্ট ক্রিকেট সুন্দর। ক্ষনে ক্ষনে রঙ বদলায় বলেই ক্রিকেটের এই আদি ফরম্যাটটি মানুষের মনে এখনো জায়গা করে আছে। একই সাথে টক, ঝাল, মিষ্টি সব ধরণের স্বাদ পাওয়া যায় টেস্ট ক্রিকেটে। তাই এই টি-টোয়েন্টির যুগেও কমেনি এর গুরুত্ব। একজন ব্যাটসম্যানের দক্ষতা ও একটি দলের শক্তিমত্তা বিচার করা হয় এই ফরম্যাট দিয়েই।

উপড়ের কথা গুলো সবারই হয়ত জানা আছে। কথা গুলো বার বার বলতে হয় টেস্ট ক্রিকেটের নতুন কোন নাটক মঞ্চায়িত হওয়ার পর। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও শ্রীলংকার মধ্যকার প্রথম টেস্টের তৃতীয় দিন শেষে জমে উঠেছে ম্যাচটি।

দ্বিতীয় দিন শেষে উইন্ডিজ এগিয়ে ছিল ৯৯ রানে। প্রথম দিনে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে ১৬৯ রানে অল আউট হয়ে সাদামাটা একটি টেস্ট উপহার দেয়ার ঈংগিত দিয়েছিল শ্রীলংকা। কিন্তু দ্বিতীয় দিনে ঘুরে দাঁড়ায় লংকানরা। ইতিহাস সব সময় সাক্ষী দেয়, লংকানরা শেষ পর্যন্ত লড়াই করে। সুরাংগা লাকমালের ৫ উইকেটে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে উইন্ডিজও। তখনই দশ নম্বরে নেমে হাল ধরেন কর্ণওয়েল। আবারও ম্যাচে ভাগ্য উইন্ডিজদের দিকে হেলে পড়ে। ৮ উইকেটে ২৬৮ রান নিয়ে দিন শেষ করে উইন্ডিজ।

প্রথম দুই দিনে ১৮ উইকেট পড়ায় ধারনা করা হচ্ছিল তৃতীয় দিনে আরো বেশি উইকেট পাবেন বোলাররা। সেই ধারাবাহিকতায় ক্যারিবীয়দের দুই উইকেট তুলে নিতে বেশি সময় নেয়নি এশিয়ান লায়নরা। প্রথম ইনিংসে ১০২ রানে এগিয়ে থেকে বোলিংয়ে নামে ক্যারিবীয়রা।

ম্যাচ ভাগ্য নিজেদের দিকে টেনে নিয়ে আসার জন্য যতটুকু পরিশ্রম করা দরকার ছিল ঠিক ততটুকুই করেছে লংকানরা। অন্তত তৃতীয় দিনের খেলা শেষে এই মন্তব্য করাই যায়। সারাদিন ব্যাট করে লংকান ব্যাটসম্যানরা ভালোই পরীক্ষা নিয়েছেন ক্যারিবীয় দানবদের। প্রথম ইনিংসের মত ব্যর্থ ক্যাপ্টেন কারুনারাত্নে। একই ভাবে প্রথম ইনিংসের মত সফল অভিজ্ঞ থিরিমান্নে। ৭৬ রানের ইনিংসে উপহার দিয়ে ফেরেন রোচের বলে বোল্ড হয়ে। তার সাথে ওসাদা ফারনান্দো দ্বিতীয় উইকেটে গড়েন ১৬২ রানের জুটি। ওসাদা ফেরেন ৯১ রান করে। ১৪৯ বলে ১১ টি চারের সাহায্যে এই রান করেন তিনি। চান্দিমাল ফেরেন ৪ রান করে।

তৃতীয় উইকেট হিসেবে চান্দিমাল ফেরার পর ১৮৯ রানের মাথায় ব্যাক্তিগত ৭৬ রানে ফিরে যান থিরিমান্নে। মাত্র ৪ টি বাউন্ডারির সাহায্যে ২০১ বল মোকাবেলা করে এই রান সংগ্রহ করেন তিনি। দিনের বাকি সময়টুকু পার করে দেন ধনঞ্জয়া ও অভিষিক্ত নিসানকা। ধনঞ্জয়া ৫ চারের সাহায্যে ৪৬ রান নিয়ে এবং নিসানকা ১ চারের সাহায্যে ২১ রান নিয়ে অপরাজিত আছেন। দুজনের মধ্যে ইতিমধ্যেই অবিচ্ছিন্ন ৬৬ রানের জুটির দেখা মিলেছে। এশিয়ান লায়নরা দিন শেষ করেছে ৪ উইকেটে ২৫৫ রান নিয়ে।

দুটি করে উইকেট নিয়েছেন রোচ ও কাইল মায়ার্স। মায়ার্স তার পার্ট টাইম বোলিংয়ের ফাঁদে ফেলে আউট করেন ২ জন ব্যাটসম্যানকে। মাত্র ৪ ওভার হাত ঘুরিয়ে দলকে এ সাফল্য এনে দেন তিনি। অপরদিকে সর্বোচ্চ ২৫ ওভার বল করে ৮৫ রান দিয়ে উইকেট শুন্য থাকেন আলোচিত কর্ণওয়েল।

দিন শেষে শ্রীলংকা এগিয়ে আছে ১৫৩ রানে। আপাদত সুবিধাজনক অবস্থায় থাকলেও স্বস্তিতে থাকার কোন কারণ নেই লংকানদের। কে বলতে পারে? আগামীকাল হয়ত উইন্ডিজ বোলারদের দিন!

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles